Category Archives: Uncategorized

চারটি চন্দ্র ভাবের ভুবনে

চারটি চন্দ্র ভাবের ভুবনে।

তার দুটি চন্দ্র প্রকাশ হয় তাই জানে অনেক জানে।।

যে জানে সেই চাঁদের ভেদকথা

বলবো কি তার ভক্তির ক্ষমতা

যে চাঁদ ধরে পাই চাঁদ অন্বেষণ

সে চাঁদ কেউ না পায় গুণে।।

এক চাঁদে চার চন্দ্র মিশে রয়

ক্ষণেক ক্ষণেক বিভিন্ন রূপ হয়

ও সে মণিকোঠার খবর পেলে

সকল খবর সেই জানে।।

ধরতে পারে মূল চন্দ্র কোনজন

গরল চন্দ্রের কর অন্বেষণ

সিরাজ সাঁই কয় দেখ রে লালন

আছে বিষ-অমৃত মিলনে।।

Advertisements

জান গে যা পদ্ম নিরূপণ

জান গে যা পদ্ম-নিরূপণ।

কোন পদ্মে জীবের স্থিতি কোন পদ্মে গুরুর আসন।।

অধ:পদ্ম ঊর্ধপদ্ম

নীলে নিত্য এই শাস্ত্র

যে পদ্ম সাধকের বর্ত

সেই পদ্মের কেমন বরণ।।

আড়া পদ্মের কুড়া ধরে

ভৃঙ্গ রতি চলে ফেরে

সেই পদ্ম কোন দলের পরে

বিকশিত হয় কখন।।

গুরুমুখে পদ্মবাক্য

হৃদয়ে যার হয়েছে ঐক্য

জানে সে সকল পক্ষ

কহে দীনহীন লালন।।


বল রে স্বরূপ কোথায় আমার সাধের প্যারি

বল রে স্বরূপ কোথায় আমার সাধের প্যারি।
যার ভাবে হয়েছি রে দণ্ডধারী।।

কোথা সে নিকুঞ্জবন
কোথা যমুনা উজন
কোথা সেই গোপিনীগণ
আহা মরি।।

রামানন্দের দরশনে
পূর্বভাব উদয় মনে
যাব আমি কাহার সনে
সেই পুরি।।

আর কিরে সেই সঙ্গ পাব
মনের সাধ পুরাইব
পরম আনন্দে রব
ঐ রূপ হেরি।।

শ্রীগৌর ঐ দিন বলে
আকুল হই তিলে তিলে
লালন কয় সেহি নীলে
সুমাধুরী।।


জান গে যা গুরুর দ্বারে জ্ঞান-উপাসনা।

​জান গে যা গুরুর দ্বারে জ্ঞান-উপাসনা।

কোন মানুষের কেমন কৃতি যাবে রে জানা।।
যার আশায় জগৎ বেহাল

তার কি আছে সকাল বিকাল

তিলক মন্ত্র না দিলে জল 

ব্রহ্মাণ্ড রয় না।।
পুরুষ পরশমণি 

কালাকাল তার কিসে জানি

জল দিয়ে সব চাতকিনী 

করে সান্ত্বনা।।
বেদবিধির অগোচর সদাই

কৃষ্ণপক্ষ নিত্য উদয়

লালন বলে মনের দ্বিধায় 

কেউ দেখে না।।