Category Archives:

অনেক ভাগ্যের ফলে সে চাঁদ কেউ দেখিতে পায়

অনেক ভাগ্যের ফলে সে চাঁদ কেউ দেখিতে পায় ।
অমাবস্যা নাই সে চাঁদে দ্বিদ্বলে আর কিরণ উদয় ।।

যেথা রে সেই চন্দ্রের ভুবন
দিবারাত্রি নাই অন্বেষণ
কোটি চন্দ্র জিনি কিরণ
বিজলী সঞ্চারে সাদাই ।।

বিন্দু মাঝে সিন্ধুবারি
মাঝখানে তার স্বর্ণগিরি
অধরচাঁদের স্বর্গপুরী
সেহি তো তিল প্রমাণ জাগায় ।।

দরশনে দুঃখ হরে
পরশনে সোনা করে
এমনি সে চাঁদের সহিমে
লালন ডুবে ডোবে না তায় ।।


অনুরাগের ঘরে মার গা চাবি

অনুরাগের ঘরে মার গা চাবি
যদি রূপনগরে যাবি ।।

শুন মন তোমায় বলি
তুই আমারে ডুবাইলি
পরের ধনে লোভ করিলি
সে ধন কয়দিন খাবি ।।

নিরঞ্জনের নাম নিরাকার
নাই্কো তার আকার-সাকার
বিনা বীজে উৎপত্তি তার
দেখলে মানুষ পাড়ল হবি ।।

সিরাজ সাঁই দরবেশে বলে
গাছ রয়েছে অগাধ জলে
ঢেউ খেলিছে ফুলে ফলে
লালন বাঞ্ছা করলে দেখতে পাবি।।


অনুরাগ নইলে কি সাধন হয়

অনুরাগ নইলে কি সাধন হয় ।
সে তো শুধু মুখের কথা নয় ।।

বনের পশু হনুমান
রাম বিনে তার নাই ধিয়ান
কইট্ মনে মুদে নয়ন
অন্যরূপ না ফিরে চায় ।।

তার সাক্ষী দেখ চাতকেরে
তৃষ্ণায় জীবন যায় মরে
তবু অন্য বারি খায় না রে
থাকে মেঘের জল আশায় ।।

রামদাস মুচির ভক্তিতে
গঙ্গা এল চাম-কেঠোতে
সে-রূপ সাধল কত মহতে
কেবল লালন কূলে কূলে বায় ।।


অনাদির আদি শ্রীকৃ্ষ্ণনিধি তার কি আছে কভু গোষ্ঠখেলা

অনাদির আদি শ্রীকৃ্ষ্ণনিধি তার কি আছে কভু গোষ্ঠখেলা ।
ব্রহ্মরূপে সে অটলে বসে লীলাকারি তার অংশকলা ।।

সত্য সত্য শরণ বেদ-আগমে কয়
সচ্চিদানন্দ রূপে পূর্ণব্রহ্ম হয়
জন্মমৃত্যু যার নাই ভবের পর
সে তো নয় স্বয়ং প্রভু নন্দলালা ।।

পূর্ণচন্দ্র কৃষ্ণ রসিক সেজন
শক্তিতে উদয় শক্তিতে সৃজন
মহাভাবের সর্বচিত্ত আকর্ষণ
বৃহদাগমে তারে বিষ্ণু বলা ।।

গুরুকৃপা বলে কোন ভাগ্যবান
দেখেছে সে রূপ পেয়ে চক্ষুদান
সে রূপ হেরিয়ে সদা যে অজ্ঞান
লালন বলে সে তো প্রেমের ভোলা ।।


অধরাকে ধরতে পারি কই গো তারে তার

অধরাকে ধরতে পারি কই গো তারে তার
আত্মারূপে চলে ফেরে মানুষ মারা কলের পর ।।

প্রেমগঞ্জের রসিক যারা, কামগঞ্জে ভুল
কামে থেকে ধরতে পারে তরঙ্গের কূল
এ পাড়েতে বসে দেখি ও পাড়েতে কূল
মানুষ মারি মানুষ ধরি মানুষ খারদার।।

শূন্যের উপরে ধনুক ধরা বেজায় বিষফল
চলক পলকে হেলে পড়ে এয়ছা মজার কল
ক্ষণেক ধরা ক্ষণেক অধর, পথ ছাড়া অপথে চল
ক্ষণেই নিরাকার মানুষ ক্ষণেই আকার ।।

ওসে আবার ভাঙা যন্ত্র বাজে ঠসঠস
পাকে পাকে তার ছিঁড়ে যায় করে খসখস
সিরাজ সাঁই কয় বাজে না ভাঙা বস্
লালন রে তোর কেবল দৌড়াদৌড়ি সার ।।


অজান খবর না জানিলে কীসের ফকিরি

অজান খবর না জানিলে কীসের ফকিরি ।
যে নূরে নূরনবি আমার তাহে আরশে বারি ।।

বলব কি সেই নূরের ধারা
নূরেতে নূর আছে ঘেরা
ধরতে গেলে না যায় ধরা
যৈছেরে বিজরি ।।

মূলাধারের মূল সেহি নূর
নূরের ভেদ অকূল সমুদ্দুর
যার হয়েছে প্রেমের অঙ্কুর
ঐ নূর ঝলক দিচ্ছে তারি ।।

সিরাজ সাঁই বলে রে লালন
কর গে আপন দেহের বলন
নূরে নীরে করে মিলন
থেক রে নেহারি ।।