Monthly Archives: এপ্রিল 2013

মধুর দেল-দরিয়ায় ডুবে কর রে ফকিরি

মধুর দেল-দরিয়ায় ডুবে কর রে ফকিরি।
ছাড় ফিকির হলো আখেরি।।

শুনতে পাই দেহের চৌদ্দ ঘর
আঠারো চারিতে করিয়ে বিচার
লা-মোকাম আছে তাহারি উপর
মওলার নিজ আসন সেই পুরি।।

আল্লার তক্ত বান্দার দেল যথা
কোরানে বলেছে আপে খোদ খোদা
আজাজিলের পর হইল খাতা
না বুঝে দেল গভীরি।।

দেল-দরিয়ায় ডুবারু হয় যে
আলখানার ভেদ পাইবে সে
আলে আজব কাম দ্বিদলে বারামে
লালন হাতছাড়া বাহিরি।।


ওমা যশোদে তায় আর বললে কী হবে

ওমা যশোদে তায় আর বললে কী হবে।
গোপালকে যে এটো দেয় মা মনে যে ভাব ভেবে।।

কান্ধে চড়ায় কান্ধে চড়ি
যে ভাব ধরায় সে ভাব ধরি
এইসব বাসনা তারি
বুঝে ছিলাম পূর্বে।।

মিঠার জন্যে এটো দিই মা
পাপ-পুণ্যের জ্ঞান থাকে না
গোপাল খেলে হই সান্ত্বনা
পাপ-পুণ্য কে ভাবে।।

গোপালের সঙ্গে যে ভাব
বলতে আকুল হয় মা তা সব
লালন বলে পাপ-পুণ্য লাভ
ভুল হয় গোপালকে সেবে।।


ও তোর ঠিকের ঘরে ভুল পড়েছে মন

ও তোর ঠিকের ঘরে ভুল পড়েছে মন।
কী সে চিনবি রে মানুষরতন।।

আপন খবর নাই আপনারে
বেড়াও পরের খবর করে
মন রে আপনারে চিনলে পরে
পরকে চেনা যায় তখন।।

ছিলি কোথা আলি কোথা
স্মরণ কিছু হলো না তা
কী বুঝে মুড়ালি মাথা
পথের নাহি অন্বেষণ।।

যার সাথে এই দেশে এলি
তারে আজ কোথায় হারালি
দরবেশ সিরাজ সাঁই কয়, পেট শাখালি
তাই লয়ে পাগল লালন।।


মদিনায় রাসুল নামে কে এল ভাই

মদিনায় রাসুল নামে কে এল ভাই।
কায়াধারী হয়ে কেন তার ছায়া নাই।।

ছায়াহীন যার কায়া
ত্রিজগতে তাইরি ছায়া
এই কথাটির মর্ম লওয়া
অবশ্য চায়।।

কী দিব তুলনা তারে
খুঁজে না পাই এ সংসারে
মেঘে যেমন ছায়া ধরে
ধূপের সময়।।

ছায়াহীন যারে দেখি
শরিক নাই যার সেই লা-শরিকি
লালন বলে তার হাকিকি
বলিতে ডরাই।।


মওলা বলে ডাক রসনা

মওলা বলে ডাক রসনা।
গেল দিন ছাড় বিষয় বাসনা।।

যেদিনে সাই হিসাব নেবে
আগুন পানির তুফান হবে
এ বিষয় তোর কোথায় রবে
একবার ভেবে দেখ না।।

সোনার কুঠরি কোঠা রে মন
সোনার খাট-পালঙ্কে শয়ন
শেষে হবে সব অকারণ
সার হবে মাটির বিছানা।।

ইমান ধন আখেরের পুজি
সে-ঘরে দিলে না কুঞ্জি
লালন বলে হারলে বাজি
শেষে কাদলে সারবে না।।


মানুষ ভজলে সোনার মানুষ হবি

মানুষ ভজলে সোনার মানুষ হবি।
মানুষ ছাড়া ক্ষ্যাপা রে তুই মূল হারাবি।।

এই মানুষে মানুষ গাথা
গাছে যেমন আলেকলতা
জেনে শুনে মুড়াও মাথা
ও মন যাতে তরবি।।

দ্বিদলের মৃণালে
সোনার মানুষ উজলে
মানুষ-গুরু নিষ্ঠা হলে
তবে জানতে পাবি।।

এই মানুষ ছাড়া মন আমার
পড়বি রে তুই শূন্য কার
লালন বলে মানুষ আকার
ভজলে তারে পাবি।।


মানুষ লুকাল কোন শহরে

মানুষ লুকাল কোন শহরে।
এবার খুঁজে মানুষ পাই নে তারে।।

ব্রজ ছেড়ে নদে এল
পূর্বান্তরে খবর দিল
নদে ছেড়ে কোথায় গেল
যে জান সে বলো মোরে।।

স্বরূপে এই রূপ দেখা
যেমন হয় চাঁদের আভা
তেমনি মত দেখলো কেবা
ক্ষণেক ক্ষণেক বারাম দেয় রে।।

কেউ বলে তার নিজ রূপ ভজন
লয়ে নিজ দেশে গমন
মনে মনে ভাবে লালন
সেই নিজ দেশ বলি কারে।।